টিমওয়ার্ক নিয়ে অভিজ্ঞতা !

একটা ভাল টিম তাকেই বলে যখন তার সকল মেম্বাররা সেখানে সমান ভাবে কন্ট্রিবিউট করে…একটা টিমে সব কাজ একজন করল আর বাকিরা বসে ঘাস কাটলো, বনে বাদারে ঘুড়ে বেড়ালো এটাকে কখনো টিমওয়ার্ক বলে না…একটা সফল কাজ যেমন একটা টিমওয়ার্ক থেকে আসতে পারে উদাহারণ স্বরূপ বলা যায় আজকের গুগল……কাজের সময় ফাকি মারা আর বড় বড় বুলি আওড়ানো কখনোই একটা টিম ওয়ার্কের বৈশিস্ট্য হতে পারেনা..কথায় আছে কর্মেই মানুষের পরিচয়….তুমি যখন একটা টিমের মেম্বার হও বা হতে যাচ্ছ ঠিক তখনই তোমার ওপর কিছু দায়িত্ব জন্মে যায় সেটা অনেকটা এরকম যে তোমার কারণে যেমন একটা প্রজেক্ট সফলতার মুখ দেখতে পারে আবার তোমার বৈরাগী সুলভ আর গা ছাড়া ভাবের কারনেই সেই প্রজেক্ট ধ্বসেও যেতে পারে…..এক/দুজনের ফাকিবাজি আর পিছলিয়ে যাওয়া মনোভাবের কারনে একটা ছোটো বা বড় টিমের বাকি মেম্বাররাও দেখা যায় সাফার করে…সময় নস্ট হয়…কাজের ফোকাস কমে যায়…..দেখা যায় একজনের ফাকিবাজির কারণেই কোনো কোনো প্রজেক্ট তার ডেডলাইন অনুযায়ী ফিনিশিং লাইন এর মুখ নাও দেখতে পারে….আসলে প্রত্যেকটা মানুষেরই উচিৎ তার নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী টিম ফর্ম করা কারণ সব কিছু দাম দিয়ে কেনা গেলেও নস্ট হয়ে যাওয়া সময় কখনোই দাম দিয়ে কেনা যায় না 🙂