Monthly Archives: September 2016

Never give up ! :)

x2016_09_25_21_0_b-jpg-pagespeed-ic-vfjsucielt

 

2016-09-25-07_41_26-eprothomalo

আত্মদিবস – Motivation from ঝংকার মাহবুব ভাই

পুরো লিখাটার Credit: Jhankar Mahbub ভাইয়ের…নিজেকে নিজের মোটিভেশান দেয়ার জন্য আমার ব্লগে রেখে দিলাম 🙂

সপ্তাহে একদিন, মাসে অন্ততঃ দুইদিন কি নিজের জন্য রাখা যায় না? স্রেফ নিজের জন্য। সেদিন টিভি দেখলা না, ফেইসবুকিং করলা না, বাইরে ঘুরাঘুরি-আড্ডা দিলা না। কেউ দেখা করতে চাইলে তাকে শরীর খারাপ কিংবা দেশ থেকে চাচা আসছে- চাচাকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে বলে- দেখা করলা না। দিনের প্রায় সবটুকু সময় নিজের জন্য রাখবা। আর এই দিনকে বলবা- আত্নদিবস।
.
প্রত্যেকটা আত্নদিবস কিভাবে উদযাপন করবা সেটা আগে থেকে ঠিক করে রাখবা। এমন কিছু একটা করলা, যেটা অনেকদিন ধরে করতে চাইতেছো কিন্তু করা হয়ে উঠতেছে না। এমন কিছু একটা শিখলা, যেটা অনেক দিন ধরে শিখবো শিখবো করে আশা করতেছো কিন্তু পড়াশুনার ঠেলায়, ফাঁকিবাজির মেলায় করা হয়ে উঠতেছে না। সেটা হতে পারে গিটারের কর্ড ধরতে শিখা, ক্যামেরার অপশনগুলা ভালো করে গুঁতায় গাতায় দেখা, পত্রিকায় আর্টিকেল লেখা, ফটোশপ বা কোন সফটওয়্যার বা প্রোগ্রামিং এর একটা বাংলা বই নিয়ে দেখে দেখে ১০০ পাতা পর্যন্ত যা যা করতে বলছে তা তা করে ফেলা, কিংবা প্রিয় মানুষটাকে মুগ্ধ করার জন্য তাকে নিয়ে কোন হেব্বি রোমান্টিক একটা গান লিখে ফেললা। জাস্ট একটা দিনই তো। সেদিন অন্যদের সাথে একটু কম মজা করে নিজের ইচ্ছার পূরণের আনন্দ করলা।
.
স্টুডেন্ট লাইফে কয়েকদিন পরপর আত্নদিবস পালন করতে পারলে, খুব সহজেই ৯৫% পোলাপানরে পিছনে ফেলে দিতে পারবে।মনে রাখবা, পাশ করে গেলে চাকরির প্রেসারে, বিয়ে করলে সংসারের চাপে, পোলা-মাইয়া পয়দা হইলে তাগো ক্যাচালে, নিজের ইচ্ছা- নিজের স্বপ্নের অনেক কিছুই হারিয়ে যাবে। তখন যাতে- আফসোস না থাকে সেই জন্যই আত্নদিবস।
.
আত্নদিবসের আউটকাম হবে- ফিউচারের আফসোস বাক্স খালি রাখা। যাতে বুড়া বয়সে বলা না লাগে- আরেকটু সময় দিলে টপ লেভেলের এথলেট হতে পারতাম, ঐখানে রেগুলার প্রাকটিস করতে পারলে হয়তো টিভিতে গান গাইতে পারতাম। ওদের মতো পড়ালেখা করলে আমিও হায়ার স্টাডির জন্য দেশের বাইরে যেতে পারতাম। কিংবা সময়মতো শুরু করলে হয়তো বিসিএসে চান্স পেয়ে যেতাম।
.
তাই আত্নদিবসের মূল লক্ষ্য হচ্ছে, নিজের সখ- স্বপ্ন, ইচ্ছা, আশাটাকে হাতের নাগালে আনার জন্য ডিডিকেটেড সময় ইনভেস্ট করা। পুরা একদিন ম্যানেজ করতে না পারলে অর্ধেক অর্ধেক করে দুই দিন মিলিয়ে একটা আত্নদিবস সেট করো। প্রয়োজন হলে তিন ঘন্টা তিন ঘন্টা করে আত্নদিবস পালন করো। তারপরেও আত্নদিবস পালন করতে হবে। কারণ আত্নদিবস পালন না করলে- তুমি আর তুমি হয়ে উঠতে পারবে না।

ফোকাস, কাজ, প্রোডাক্টিভিটি

যে কোনো প্রোডাক্টিভ কাজ যেমনঃ প্রোগ্রামিং, এক্সামের প্রিপ, পারসোনাল ডেভেলপমেন্ট, নতুন কিছু শিখা ইত্যাদির সময় নিজেকে নিজে ডেডলাইন না দিতে পারলে মন এদিক সেদিক চলে যাবেই…নিজেকে এক বিন্দুতে ফোকাস করতে না পারলে কাজ করার জন্য পিসি নিয়ে বসলেও মন পড়ে থাকবে ইউটিউব, ফেসবুক কিংবা অন্য কোথাও!..তাই কাজের ফাকে নিজেকে অবশ্যই বিরতি দেয়া উচিত…এজন্য বারান্দা থেকে ঘুরে আসা যায় অথবা এক গ্লাস পানি খেয়ে ফেলা যায়…ছোটো ছোটো ভাগে নিজের কাজটাকে ভাগ করে সেটাকে গোল হিসাবে এগিয়ে নিতে পারলে এবং তাতে হালকা পাতলা সাকসেসফুল হলে মাঝে মাঝে টুকটাক সেলিব্রেট করতে হবে একা একাই। তানাহলে পরবর্তীতে নিজেকে এগিয়ে নেয়ার ইন্সপাইরেশন পাওয়া যাবে না…এজন্য মোটিভেশন পেতে সাইক্লিং কিংবা অনেকক্ষণ জিম করা যায় কিংবা বাইরে থেকে থেকে ফ্রাইড চিকেন কিংবা পাস্তা খেয়ে আসা যায়। এরফলে পরবর্তী কাজগুলোতে ফোকাস করা অনেকটা সহজ হয়ে যায়।
#ফোকাস #কাজ #প্রোডাক্টিভিটি

প্রচন্ড কস্ট হচ্ছে

সপ্তাহখানেক ধরেই এক্সামের আগে দিয়ে জর… পরীক্ষাও দিলাম জর নিয়ে…শেষ পরীক্ষাটাও একদমই ভাল হয় নায়… হবে কিভাবে ? মাথার ভেতর যে গত কয়েকদিন যাবত অসম্ভব পেইন হচ্ছে….অনেক চেস্টা করেছি পড়া ভালভাবে শেষ করতে কিন্তু মাথা আর কাজ করতে চায় না…এগুলাতো আবার কারো সাথে শেয়ার করার অবস্থা নাই…কার এত ঠেকা পরসে!…..আমার মনে হয় আমার পুরাপুরি রেস্ট এ চলে যাওয়া দরকার জীবনের সব কিছু থেকে……আগে জীবনের এই প্রেশার কে মানিয়ে নিতে জিম করতাম প্রচুর, বডিবিল্ডিং ডট কমে অনেকের মোটীভেশনাল হেলথি লাইফস্টাইল দেখে মেইন্টেন করার চেস্টার করতাম নিজের ভেতরেও, আমেরিকান ডায়েট ফলো করতাম, তাদের ফিটনেস লাইফস্টাইল আমার অনেক ভাল লাগে সবসময়ই, সপ্তাহে নিয়মিত সাইক্লিং এর জন্য একটা দিন রাখতাম  পাশাপাশি…এখন সেই সময়টাও পাইনা…কি নিয়ে এই জীবনে বাচবো আমার জানা নাই…যেই জীবন জীবনের সব ইচ্ছারই মৃত্যু দিয়ে দিয়েছে সেই জীবনের আদৌ কি কোনো দরকার আছে ?..এর উত্তর আমার জানা নাই…. ছোট এই জীবনে গত চারবছর নিশ্চিন্তে একটা রাতও ঘুমাতে পারিনাই অ্যাকাডেমিক প্রেশারে…সব কিছু থেকে বিদায় দিয়ে দিবো একদিন…কেবল কায়িক পরিশ্রমে সময় দিব প্রচুর…জিম করব সারাদিন…পুরোনো স্ট্রেংথ ফিরিয়ে আনবো ইনশাআল্লাহ